চুল খুশকি মুক্ত রাখতে যা করবেন


বাসার আর কারো খুশকি থাক বা না থাক, নিজের চিরুনি সব সময়ই আলাদা করে রাখুন। এই চিরুনি অন্য কাউকে ব্যবহার করতে দেবেন না। নিজেও অন্য কারোটা মাথায় ছোঁয়াবেন না।

একইভাবে নিজের জন্য আলাদা একটি মাথা মোছার তোয়ালে রাখুন।

বালিশের কাভার এবং বিছানার চাদর কিছুদিন পর পর ডেটল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

চুল বড় হোক কিংবা ছোট, খুশকি থেকে বাঁচতে চাইলে তা কখনোই ভেজা অবস্থায় আঁচড়ানো যাবে না।

এদিকে যাদের চুলে ইতোমধ্যেই খুশকির সংক্রমন হয়েছে তারাও ঢালাওভাবে চুলে এন্টি-ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু দিয়ে নিশ্চিন্ত মনে বসে থাকলে চলবে না। বরং খুশকির ধরণ বুঝে নিতে হবে বিশেষ ব্যবস্থা। খুশকি যদি আঠালো বা তেলতেল টাইপের হয় অথবা যদি মাথার ত্বকে সেরোরিক ডার্মাটাইটিসের মতো রোগের সংক্রমন হয় তাহলে চুলে কোনোপ্রকার তেল দেয়া যাবে না। আর চটজলদি কোনো ভাল বিউটি পার্লার থেকে নিতে হবে হার্বাল ট্রিটমেন্ট। তবে যাদের পক্ষে পার্লারে গিয়ে হার্বাল ট্রিটমেন্ট করানো সম্ভবপর নয় তারা বাসায় বসেও কিছু কৌশল অবলম্বন করে খুশকির সংক্রমন কমাতে পারেন। এক্ষেত্রে নীচের যেকোনো একটি পদ্ধতি আপনার কাজে আসতে পারে।

জবা ফুল, আমলকি ও জলপাই একসঙ্গে বেটে চুলের গোড়ায় লাগান। এরপর আধঘন্টা সময় এটি মাথায় রেখে চুল শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন।

দূর্বা ঘাস এবং নিমপাতা বাটার সাথে ভিনেগার ও শসার রস মিশিয়ে পেস্ট করে মাথায় লাগান এবং আধঘন্টা পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

তুলসি পাতা বাটার সাথে কর্পুর ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে চুলের গোড়ায় আধঘন্টা দিয়ে রেখে চুল শ্যাম্পু করে ফেলুন।
অন্যদিকে যাদের খুশকি আঠালো বা তেলতেলে ধরণের নয়, অর্থাৎ যারা শুস্ক খুশকিতে আক্রান্ত তারা ঘরে বসে যা করতে পারেন তাহলো

কিছু কাঁচা আমলকি ছেঁচে তেলে দিয়ে রোদে দুই তিন দিন শুকিয়ে নিন। তারপর এই তেলটি সপ্তাহে দুদিন মাথায় লাগান। চুলে শ্যাম্পু করবার আগে মাথায় গরম তোয়ালের ভাপ নিয়ে নিন।

মেথী বাটা, আমলকির রস, অল্প গ্লিসারিন, একটি ডিম ও টকদই সামান্য গরম পানিতে পেস্ট করে মাথায় লাগান এবং আধঘন্টা পর চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কেশুতি পাতা বাটা, আদার রস, আমলকি ও শিকাকাই গুড়ো নারকেলের দুধ দিয়ে পেস্ট করে মাথায় লাগান।আধঘন্টা পর চুল শুকিয়ে গেলে শ্যাম্পু করে ফেলুন।

টিপস

** চুল পড়া বন্ধ করতে ভিটামিন ই ক্যাপসুল খান অথবা ই ক্যাপ নারকেল তেলের সাথে মিশিয়ে হালকা গরম করে চুলে লাগান। ক্যাস্টর অয়েল তেলের সাথে মিশিয়ে ব্যাবহার করতে পারেন।চুল পরা কমে যাবে।মনে রাখবেন প্রতিদিন 40-50 টা চুল পরা স্বাভাবিক।সেজন্য চুল পরতে দেখে অযথা চিন্তিত হবেন না।এর বেশি চুল পড়লে সেটা অস্বাভাবিক।

**যেসব চুলের গোরা চটচটে ও উপরিভাগ রুক্ষ সেসব চুল সাধারনত মিশ্র প্রকৃতির চুল।এরকম চুলে সপ্তাহে অন্তত 3 দিন শ্যাম্পু করুন ও কন্ডিশনার ব্যাবহার করুন।শ্যাম্পুর আগে কুসুম গরম তেলে লেবুর রস মিশিয়ে হালকা মাসাজ করে নিবেন।চুল ভাল থাকবে।

VN:R_U [1.9.22_1171]
রেটিং করুন:
Rating: 0.0/5 (0 votes cast)
VN:R_U [1.9.22_1171]
Rating: 0 (from 0 votes)

এই পোস্টের বিষয়বস্তু ও বক্তব্য একান্তই পোস্ট লেখকের নিজের, লেখার যে কোন নৈতিক ও আইনগত দায়-দায়িত্ব লেখকের। অনুরূপভাবে যে কোন মন্তব্যের নৈতিক ও আইনগত দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট মন্তব্যকারীর। শব্দনীড় ব্লগ কোন লেখা ও মন্তব্যের অনুমোদন বা অননুমোদন করে না।
▽ এই পোস্টের ব্যাপারে আপনার কোন আপত্তি আছে?

৯ টি মন্তব্য (লেখকের ৪টি) | ৪ জন মন্তব্যকারী

  1. মোঃ খালিদ উমর : ২৫-০৯-২০১২ | ১২:৩৪ |

    সবার জন্য প্রয়োজনীয় পোস্ট।
    একটা প্রশ্নঃ এই চিকিতসা কি মহিলা এবং পুরুষ সবার জন্য প্রজোয্য?

    • শাপলা : ০৩-১০-২০১২ | ১২:৩৭ |

      এই চিকিতসা কি মহিলা এবং পুরুষ সবার জন্য প্রজোয্য Smile Smile

  2. মাতরিয়শকা : ২৫-০৯-২০১২ | ১৪:৫৯ |

    কাঁচা আমলকি বেটে তার রস চুলের গোড়ায় ঘষে আধ ঘন্টা পর ধুয়ে ফেলা (শ্যাম্পু ছাড়া)। চুলে খুশকি তো দুরের কথা, এখন চুলের গোড়া এমন শক্ত হয়েছে যে চুল পড়া একেবারেই বন্ধ হয়ে গিয়েছে। আমি নিজে এর জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত। Yes

    • সাহাদাত উদরাজী : ২৫-০৯-২০১২ | ১৬:৫৮ |

      বলেন কি! খুস্কিতে আমার সব চুল গেল!

    • শাপলা : ০৩-১০-২০১২ | ১২:৩৮ |

      সাহাদাত ভাই, আপনি আমলকী ট্রিটমেন্ট করে দেখতে পারেন Smile

      ধন্যবাদ মাতরিয়শকা Rose

  3. সুমন আহমেদ : ২৫-০৯-২০১২ | ১৬:২৩ |

    উপকারি পোস্ট কিন্তু পুরুষের জন্যও কি?

    • শাপলা : ০৩-১০-২০১২ | ১২:৩৯ |

      এই চিকিতসা কি মহিলা এবং পুরুষ সবার জন্য প্রজোয্য Smile Rose

  4. সাহাদাত উদরাজী : ২৫-০৯-২০১২ | ১৭:০০ |

    হাতে নাতে প্রমান আছে, আমিও ট্রাই করব।

    (শাপলা বোন, আপনার এই চেষ্টা ভাল লাগে)

    • শাপলা : ০৩-১০-২০১২ | ১২:৪০ |

      ধন্যবাদ জানবেন
      আপনি আমলকী ট্রিটমেন্ট করে দেখতে পারেন Smile